1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  3. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
হৃদয়বিদারকঃ অন্তঃসত্ত্বা প্রে;মিকাকে মেরে নদীতে ফেলে দিল প্রেমিক! - Online newspaper in Bangladesh

হৃদয়বিদারকঃ অন্তঃসত্ত্বা প্রে;মিকাকে মেরে নদীতে ফেলে দিল প্রেমিক!

  • আপডেট করা হয়েছে: শনিবার, ২০ নভেম্বর, ২০২১
  • ১৫৮ বার পঠিত

প্রেমের এই পরিণতি! বিয়ের আগে যার সাথে তরুণীর ছিল নিবিড় সম্পর্ক। হঠাৎ অন্যত্র বিয়ে হয়ে গেলে এ সম্পর্কে ছেদ পড়ে। কিন্তু তরুণীর ওই বিয়ে টিকলো না বেশিদিন। বিচ্ছেদের পর আবার সেই পুরনো প্রেমিকের সাথেই নতুন উদ্যমে সম্পর্ক। একান্তে জড়ানোর পর একসময়

প্রেমিকা হয়ে পড়েন অন্তঃসত্ত্বা। কিন্তু প্রেমিক তো এখন তাকে বিয়ে করতে নারাজ। এর সুরাহা করতে প্রেমিক এবার পরিকল্পনা করলেন প্রেমিকাকে হত্যার। লোকচক্ষুর আড়ালে মেঘনার বুকে প্রেমিকাকে নিয়ে মেরে ফেলা। তারপর মেঘনায় ভাসিয়ে দেয়া। এই হলো প্রেমের

পরিণতি। ঘটনাটি নরসিংদীর রায়পুরা থানার। ঘটনার দেড় বছর পর জানা গেল বিয়ের জন্য চাপ দেয়ায় ওই তরুণীকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করে মেঘনা নদীতে ভাসিয়ে দিয়েছিল কথিত প্রেমিক। রায়পুরা এলাকার এ ঘটনার রহস্য উদঘাটন করেছে পিবিআই। এ ঘটনায় সন্দেহভাজন

দু’জনকে গ্রেফতার করলেও ধরাছোঁয়ার বাইরে রয়েছে প্রধান আসামি আমিনুল। পিবিআই জানায়, আসামি সুজন মিয়া ও আসামি জহিরুল ইসলামকে (২০) গ্রেফতার করা হয়েছে। দু’জনই আদালতে স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। জানা গেছে, নরসিংদীর নিপা আক্তারের

সঙ্গে প্রেমের সম্পর্ক গড়ে ওঠে একই গ্রামের আমিনুলের। কিন্তু নিপার হঠাৎ অন্য জায়গায় বিয়ে হয়ে যায়। কিন্তু সেই বিয়ে বেশিদিন স্থায়ী হয়নি। আমিনুলের সঙ্গে আবারো সম্পর্ক হলে একপর্যায়ে অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পড়েন নিপা। কিন্তু আমিনুল বিয়ে করতে রাজি না হয়ে বরং তাকে

হত্যার পরিকল্পনা করেন। নরসিংদীর পুলিশ সুপার মো: এনায়েত হোসেন মান্নান বলেন, নিপা বিয়ের জন্য আমিনুলকে চাপ দেন। এতে আমিনুল তার সহযোগী সুজন মিয়া, জহিরুল ইসলামসহ অন্যদের নিয়ে নিপাকে বিয়ে করার কথা বলে গত বছরের ২৪ এপ্রিল মেঘনা নদীতে নৌভ্রমণে নিয়ে যান। সেখানে নিপাকে হত্যা করে লাশ নদীর চরে মাটিচাপা দেয়ার পরিকল্পনা করেন তারা। তারা নিপাকে মাঝনদীতে নিয়ে

গামছা দিয়ে শ্বাসরোধ ও নৌকার কাঠ দিয়ে পিটিয়ে হত্যা করেন। এরপর তারা লাশনদীর চরে মাটিচাপা দেয়ার চেষ্টা করেন। কিন্তু নদীতে জেলেরা থাকায় তারা নিপার লাশ মাটিচাপা দিতে পারেননি। পরে তারা লাশ মেঘনা নদীতে ফেলে দেন।মেয়ের হত্যার মামলার বাদী নিপার মা জানান, প্রতিপক্ষের লোকজন এখনো তাকে হত্যার হুমকি দেয়। ‘আমাকে মেরে ফেলার হুমকি দেয়া হয় প্রায় সময়। বাড়ি যেতে না করে। আমাকে নানাভাবে হয়রানি করা হচ্ছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2021
Site Developed By Bijoyerbangla.com