1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD Atikurrahaman : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  5. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আরব আমিরাত বললেন: এরদোগান তোমাদেরকে সেলেব্রিটি বানানোর জন্য আমি রাজপথে নামিনি শিপ্রা-সিফাতকে নুর মসজিদে আযান দেয়ার সময় বাবাকে কোপাল ছেলে করোনা আক্রান্ত পুরোহিত ছিলো মোদীর সঙ্গে একমঞ্চে হতে পারে মোদীরও করোনা ! মুসলমানদের ঐক্য নষ্টে করতে চেয়েছিল মোসাদ: ষড়যন্ত্র ফাঁস হয়ে গেছে জীবনে একবার হলেও যে নামাজ পরতে হয় সেই সালাতুত তাসবিহ পড়ার নিয়ম যে দোয়া পড়লে সব সময় আল্লাহর রহমত নাজিল হয় ইসরাইলীরা ভেঙে দিচ্ছে বাড়ি,কান্নারত ফিলিস্তিনি শিশু বলল ‘আমার আল্লাহ্ ওদের বাড়িও ভেঙে দিবেন জানা গেলো লেবাননে ভয়াবহ বিস্ফোরণের কারণ পরিচয় মিলেছে প্রদীপের সেই আইনি পরামর্শদাতার

যেভাবে চিত্রনায়ক থেকে গাউছিয়া মার্কেটের ব্যবসায়ী হলেন শাহিন

  • প্রকাশিত: ০৭:১৮ am | শুক্রবার ৩ জুলাই, ২০২০
  • ২৯৬ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
যেভাবে চিত্রনায়ক থেকে গাউছিয়া মার্কেটের ব্যবসায়ী হলেন শাহিন।মেয়ের বয়স তখন আঠারো। পড়ত কলেজে। পরীক্ষায় খারাপ ফল করল। আবেগে ফ্যানের সঙ্গে ঝুলে পড়ল। রাতে ব্যবসার কাজে বাইরে ছিলেন শাহিন আলম। মেয়ের সিলিংয়ে ঝোলার খবর শুনে ছুটে এলেন। দেখলেন মেয়ে তাঁর পৃথিবী ছেড়ে চলে গেছে। একমাত্র মেয়ের মৃত্যুর পর

 
ভেঙে পড়লেন মানসিকভাবে, বদলে গেল শাহিন আলমের জীবন। ছেড়ে দিলেন অভিনয়। আগেই অভিনয়ের সঙ্গে টুকটাক গার্মেন্টসের ব্যবসা করতেন। সেটাকেই জীবিকা হিসেবে নিলেন। এখন তিনি পুরোদস্তর ব্যবসায়ী।

 
হুট করে সিদ্ধান্ত নিলেও তখন যে ছবিগুলো হাতে ছিল, সেগুলোর কাজ শেষ করে দিলেন। নতুন করে আর কোনো ছবির কাজ হাতে নিলেন না। শেষ তিনি ক্যামেরার সামনে দাঁড়ান রকিবুল আলম পরিচালিত ‘দারোয়ানের ছেলে’ ছবির জন্য। শেষের দিকে কাজী হায়াতের অনুরোধে দু-একটি ছবিতে কাজ করেছেন। তাঁরও আগেই থেকেই তিনি অভিনয় থেকে পালিয়ে পালিয়ে বেড়াচ্ছিলেন।

 
‘সিনেমা যখন পরিচালকদের হাত থেকে প্রযোজকদের হাতে চলে গেল, তখন থেকেই সিনেমার অবস্থা খারাপ হতে শুরু করল। প্রযোজকেরা আমার কাছে ভালগার শট দেওয়ার অনেক অনুরোধ করেছে। আমি করিনি। পরে তারা কাটপিস শুট করেছে। পর্দায় আমার ক্লোজআপ ব্যবহার করেছে।

 
আমি ধরলে বলেছে, না করে উপায় নেই, ভাই। এসব দেখেশুনে অভিনয়ের নেশাটা কেটে গেল। আর নেশা না থাকলে পেশায় কতক্ষণ থাকা যায়?’ বললেন শাহিন আলম।

 
প্রায় দেড় শ ছবিতে অভিনয়ের পর শাহিন আলম ব্যবসায় মনোযোগ দেন। অভিনয়ের পাশাপাশি গার্মেন্টসের ব্যবসা করতেন। অভিনয় ছাড়ার পর পুরোপুরি সেখানেই মন দেন। কিন্তু গার্মেন্টসের ব্যবসায় সুবিধা করে উঠতে পারেননি। রাজধানীর গাউছিয়ায়

 
তাঁদের পৈতৃক দুটো শোরুম ছিল। অভিনয় ছাড়ার পর এই শোরুমগুলোতে ব্যবসা শুরু করেন শাহিন আলম। একটি শোরুম ভাড়ায় চলে। আরেকটি শোরুমে নিজে ব্যবসা করেন।

 
আগে নিজেই শোরুমে বসতেন। এখন তাঁর ভাতিজা বসেন। কারণ, চার বছর ধরে গুরুতর অসুস্থ শাহিন আলম। জটিল কিডনি রোগে ভুগছেন। সাড়ে তিন বছর ধরে ডায়ালাইসিস চলছে। প্রতি সপ্তাহে তিন দিন সাভারের গণস্বাস্থ্যকেন্দ্রে ডায়ালাইসিসের জন্য যেতে হয় তাকে। তাঁর অসুস্থতার খবর খুব বেশি লোকের জানা নেই। শাহিন আলম

 
বললেন, ‘অভিনয় ছাড়ার পর প্রথম দুই বছর অনেকে যোগাযোগ করত। যখন সবাই জেনে গেল, অভিনয় ছেড়ে দিয়েছি, তখন আর তেমন কেউ যোগাযোগ করে না।’