1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  5. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
অবৈধ সম্পদ অর্জনে সাবেক ওসি হরেন্দ্র নাথ সরকার ও তার স্ত্রী কৃষ্ণা রানীর বিরুদ্ধে দুদকের মামলা! এবার ভোলায় পেঁয়াজ চাষে ইউপি চেয়ারম্যানের নতুন চমক! সকালে খালি পেটে পানি পান করলে যেসব রোগ থেকে মুক্তি মিলবে? এবার পেঁয়াজের কেজি পৌনে তিন টাকা! অপরাধ না করেও ৫ বছরে জেল খাটার পর মুক্তি পেলেন আরমান! ট্রাম্প প্রশাসন ছিল শান্তি বিরোধী তাই নীতি বদলান: বাইডেনকে ইমরান খান এবার মুসলিম নারী চিকিৎসকদের হিজাব পরার অনুমতি মিলল যুক্তরাজ্যের হাসপাতালে গত ২০ বছর ধরে পরে থাকা আল্লাহর নাম সংরক্ষণ করছেন হোসনে আরা মাটির ময়না ছবির আনু এখন মিডিয়া ছেড়ে ধর্মের পথে ১৯৭১ এর মতোই ভারত করোনার বিপদে আমাদের পাশে দাঁড়িয়েছে:পররাষ্ট্রমন্ত্রী

সর্বপ্রথম এই মসজিদ থেকে ইসলামের প্রচলন ঘটে!

  • প্রকাশিত: ০৯:০২ pm | রবিবার ১৫ নভেম্বর, ২০২০
  • ৫৮৫ বার পঠিত

সর্বপ্রথম এই মসজিদ থেকে ইসলামের প্রচলন ঘটে!

মহানবী হযরত মুহাম্ম’দ (সা.) জ’ন্মগ্রহন করেন খ্রিস্টিয় ৫৭০ সালে। এর মাত্র ৫০ বছর পর ৬২০ খ্রিষ্টাব্দে

বাংলাদেশে আসে ইসলাম!আর উত্তরের জে’লা লালমনিরহাটে শুরু হয় যাত্রা!বিভিন্ন গবেষণা ও প্রাপ্ত শিলালিপি

এমন দা’বিই জো’রালো করেছে। এতে আরও দেখা যায়’ ৬৯০ খ্রিষ্টাব্দে দেশের প্রথম মসজিদটিও নির্মিত হয় এই

জে’লার পঞ্চগ্রাম ইউনিয়নের ‘মজেদের আড়া’ নামক গ্রামে। ১৯৮৭ সালে পঞ্চগ্রামে জঙ্গল খননের সময় প্রাচীন

মসজিদের ধ্বং’সাবশে’ষ পাওয়া যায়। এর একটি ইটে কালেমা তাইয়্যেবা ও ৬৯ হিজরি লেখা রয়েছে।এ থেকে

অনুমান করা হয়’ মসজিদটি হিজরি ৬৯ অর্থাৎ ৬৯০ খ্রিষ্টাব্দের দিকে স্থাপন কিংবা সংস্কার করা হয়।রংপুর জে’লার

ইতিহাস গ্রন্থ থেকে জা’না যায়’ রাসুল (সা.)-এর মামা’ মা আমেনার চাচাতো ভাই আবু ওয়াক্কাস (রা.) ৬২০ থেকে

৬২৬ খ্রিষ্টাব্দ পর্যন্ত বাংলাদেশে ইসলাম প্র’চার করেন (পৃ. ১২৬)। অনেকে অনুমান করেন’ পঞ্চগ্রামের মসজিদটিও

তিনি নি’’র্মাণ করেন যা ৬৯০ খ্রিষ্টাব্দে সংস্কার করা হয়।দেশের প্রথম ও প্রাচীন এই মসজিদটি উত্তর-দক্ষিণে ২১ ফুট

ও প্রস্থ ১০ ফুট। মসজিদের ভি’তরে রয়েছে একটি কাতারের জন্য ৪ ফুট প্রস্থ জায়গা। মসজিদের চার কোণে রয়েছে

অষ্টকোণ বিশিষ্ট স্তম্ভ। ধ্বং’সাবশে’ষ থেকে মসজিদের চূড়া ও গম্বুজ পাওয়া গেছে। মতিউর রহমান বসুনিয়া রচিত

‘রংপুরে দ্বীনি দাওয়াত’ গ্রন্থেও এই মসজিদের বিশদ বিবরণ আছে।‘দেশে ইসলাম প্র’চার করেন ইখতিয়ার উদ্দিন