1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. rabbimollik2002@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. abur9060@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
মানুষের ভয় কমিয়ে দিলেন ‘ক্রাইসিস ম্যানেজার’ - ২৪ ঘন্টাই খবর

মানুষের ভয় কমিয়ে দিলেন ‘ক্রাইসিস ম্যানেজার’

  • আপডেট করা হয়েছে: শনিবার, ১২ নভেম্বর, ২০২২
  • ২১৯ বার পঠিত

যুবলীগের ৫০ বছর পূর্তি ও সুবর্ণজয়ন্তী উপলক্ষে শুক্রবার (১১ নভেম্বর) রাজপথ ছিলো মুখোরিত। রাজধানীর সোহরাওয়ার্দী উদ্যানের মহাসমাবেশস্থল ছিলো কানায় কানায় পূর্ণ। গোটা রাজধানী জুড়েই ছিলো জনসমাগম।

এমন জনসমাগমে দাঁড়িয়ে দেশবাসীর ভয় অনেকটা কমিয়ে দিলেন ‘ক্রাইসিস ম্যানেজার’ খ্যাত প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বললেন, ইনশাআল্লাহ বাংলাদেশে কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না।

মহামারি করোনাভাইরাসের পর রাশিয়া-ইউক্রেন যুদ্ধ শুরু হওয়ায় বেশ কিছুদিন ধরেই বিশ্বব্যাপী দুভির্ক্ষের আশঙ্কার কথা জানিয়ে আসছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। এর রেশ যে বাংলাদেশেও পরবে সেকথাও বলেছেন বহুবার। যদিও আওয়ামী

লীগের শীর্ষ নেতারা দুর্ভিক্ষ হবে না বা শেখ হাসিনা হতে দেবেন না-এ ধরণের অভয় দিয়ে আসছিলেন তবুও সাধারণ মানুষের মনে এক অজানা ভয় চেপে বসেছে। প্রধানমন্ত্রী যেহেতু বলেছেন কিছু তো হবেই!নিজেদের পরিবারে বা প্রতিবেশিদের চোখে মুখে এমন ভয় আমরা দেখতে পাই ইদানিং।

আসন্ন সংকট নিয়ে নিজের মধ্যেও যে ভয় কাজ করে সেটাও বুঝতে পারি। অতি সাধারণ মাথায় ঘোরপাক খায়- কী হবে যদি সত্যিই দুর্ভিক্ষ হয়, সত্যিই যদি খাবারের সংকট দেখা দেয়, টাকা দিয়েও খাবার কিনতে না পাওয়া যায়! আসলেই মানুষ ভেতরে ভেতরে ভিত। তবে আজ সেই ভয় কিছুটা কমেছে।

কারণ শুক্রবার যুবলীগের সমাবেশে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, ‘সারা বিশ্বব্যাপী দুর্ভিক্ষের পদধ্বনি শোনা যাচ্ছে। বাংলাদেশে ইনশাআল্লাহ কোনো দুর্ভিক্ষ হবে না। তার জন্য আমাদের এখন থেকে প্রস্তুতি নিতে হবে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশের অর্থনীতি এখনও যথেষ্ট শক্তিশালী। যারা বলেছিল বাংলাদেশ শ্রীলঙ্কা হবে তাদের মুখে ছাই পড়েছে। সেটা হয়নি, ইনশাআল্লাহ হবেও না।’

সত্যি বলছি, কথাটা শোনার পর স্বস্তি পেয়েছি। ভয় কমেছে, বিশ্বাসটা বেড়েছে। কারণ প্রধানমন্ত্রী বলেছেন দুর্ভিক্ষ হবে না। হয়তো হবে না! মানুষ তাকে ভালোবাসে। তার শক্তি আছে, জ্ঞান আছে।মানুষ বিশ্বাস করে আল্লাহর রহমত থাকলে তিনি রুখে দেবেন আসন্ন সংকট।

এদিকে সমাবেশে আওয়ামী লীগের শীর্ষ নেতাদের বক্তব্যে অতি নিকটে দেশে রাজনৈতিক সংকট তৈরি হতে পারে বলে মনে হচ্ছে। দলের প্রেসিডিয়াম সদস্য শেখ ফজলুল করিম সেলিম বলেছেন, ‘আগামী ১০ ডিসেম্বর বিএনপি দেশ ছেড়ে পালাবে। তারা পালিয়ে পাকিস্তান যাবে।’

তিনি বলেছেন, ‘বিএনপি হুমকি দেয় ১০ ডিসেম্বর শেখ হাসিনার পতন ঘটবে। আওয়ামী লীগ নাকি পালিয়ে যাবে। খালেদা হবে প্রধানমন্ত্রী, দেশে আসবে তারেক। আরে এরা তো পাগল। আওয়ামী লীগ পালিয়ে যাওয়ার মতো কোনো রাজনৈতিক দল না। পালানো দল হলো বিএনপি। এরা পালিয়ে পাকিস্তানে যাবে।’

ফজলুল করিম সেলিম বলেন, ‘বিএনপি কোনো রাজনৈতিক দল নয়। এরা পাকিস্তানের এজেন্ট। এরা গণতন্ত্রকে হত্যা করেছে। এরাই এখন গণতন্ত্রের কথা বলছে। কীসের গণতন্ত্র? মানুষ মারার গণতন্ত্র, আগুন সন্ত্রাসের গণতন্ত্র।’

যুবলীগের নেতাকর্মীদের উদ্দেশে শেখ সেলিম বলেন, ‘বিএনপি লাফাচ্ছে ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্চার মতো। তোমরা যদি এক থাকো, তাহলে ওরা ছাগলের তিন নাম্বার বাচ্চার মতো লাফালেও কিছুই করতে পারবে না।’

দলের সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের বলেছেন, ‘খেলা হবে বিএনপির বিরুদ্ধে। প্রস্তুত হয়ে যান, জবাব দেবো।’

তিনি বলেন, ‘বিএনপি আরেকবার এলে সব খাবে। বিদেশি ঋণ গিলে খাবে। গণতন্ত্র গিলে খাবে। নির্বাচন গিলে খাবে। সুযোগ পেলে বাংলাদেশও গিলে খাবে। ঠিকা আছে? এসময় স্লোগান ধরেন কাদের। কাদেরের সঙ্গে সমবেত জনতা কণ্ঠ মেলান- আরেকবার দরকার, শেখ হাসিনার সরকার। নৌকা, শেখ হাসিনা।’

আওয়ামী লীগের উপদেষ্টামণ্ডলীর সদস্য আমির হোসেন আমু বলেছেন, ‘যারা কয়েকটি জেলায় সমাবেশ করেই উৎফুল্ল, যারা মনে করছেন, ধাক্কা দিলেই সরকার পতন হয়ে যাবে, যারা মনে করছেন, শেখ হাসিনাকে দেশ থেকে সরিয়ে দেওয়া যাবে, আজকের মহাসমাবেশ দেখলে তাদের চোখ খুলে যাবে।’

তিনি বলেন, ‘বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ ও তার অঙ্গসংগঠনের জন্ম বন্দুকের নলের মাধ্যমে হয়নি। এ দেশের তৃণমূলের মানুষের আস্থা থেকে আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠন গড়ে উঠেছে।’

সমাবেশের সভাপতি যুবলীগের চেয়ারম্যান শেখ ফজলে শামস পরশ বলেন, ‘বিএনপির সময় বাংলাদেশকে বলা হতো ‘ব্রিডিং গ্রাউন্ড অব টেরোরিজম’। সেখান থেকে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশকে এখন বলা হচ্ছে ‘নেক্সট এশিয়ান টাইগার’।

পরশ বলেন, ‘উন্নয়নের পুরোটাই নেতৃত্বের দূরদর্শিতার ওপর নির্ভর করে। শেখ হাসিনা তার প্রমাণ রেখে চলেছেন। বিশ্ব অর্থনৈতিক মন্দা থেকে বাংলাদেশকে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা রক্ষা করতে পরবেন। এ সময় সরকার প্রধান বিশ্বের সেরা ক্রাইসিস ম্যানেজার হিসেবে পরিচিত বলেও তিনি উল্লেখ করেন।’

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com