1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  3. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
মাত্র পাওয়াঃ কী ঘটেছিল জানতে জেনারেল আজিজের ছেলের সঙ্গে কথা বলেছে পুলিশ! - Online newspaper in Bangladesh

মাত্র পাওয়াঃ কী ঘটেছিল জানতে জেনারেল আজিজের ছেলের সঙ্গে কথা বলেছে পুলিশ!

  • আপডেট করা হয়েছে: বুধবার, ২৪ নভেম্বর, ২০২১
  • ২৯৯ বার পঠিত

রাজধানীর মহাখালীতে গাড়ি দুর্ঘটনায় আহত হয়ে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন রয়েছেন সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের ছেলে ইশরাক আহমেদ। এ ঘটনায় দায়ের হওয়া দুটি মামলার তদন্তের অংশ হিসেবে হাসপাতালে গিয়ে

ইশরাকের সঙ্গে কথা বলেছে পুলিশ। ইশরাক ছাড়াও আহত হন গাড়িচালক মো. মহসিন। ওই ঘটনায় নিহত হন গাড়িতে থাকা দুই তরুণ উমার আয়মান (২০) ও ফাহিম আহমাদ রায়হান (২০)। কাফরুল থানার পুলিশ কর্মকর্তারা জানান, মঙ্গলবার ভোরের ওই ঘটনায় কাফরুল থানায়

দুটি অপমৃত্যুর মামলা হয়েছে। মামলা দুটির তদন্ত কর্মকর্তা কাফরুল থানার এসআই আলমগীর জলিল। দুর্ঘটনাস্থলে কী ঘটেছিল- তা জানতে ইশরাকের সঙ্গে কথা বলা হয়েছে। বুধবার মামলা দুটির তদন্ত কর্মকর্তা এসআই আলমগীর জলিল গণমাধ্যমকে বলেন, মঙ্গলবার দুর্ঘটনার পর

ইশরাকের সঙ্গে আমি কথা বলতে পারিনি। তবে বুধবার তার সঙ্গে পুলিশের ‘প্রাথমিক’ কথা হয়েছে। এর আগে মঙ্গলবার কাফরুল থানার এসআই আনিসুর রহমান গণমাধ্যমকে জানিয়েছিলেন, ভোর পাঁচটার দিকে একটি গাড়ি মহাখালীতে রাওয়া ক্লাবের সামনে উড়ালসড়কের পিলারে ধাক্কা খায়। গাড়ির আরোহীদের মধ্যে উমার আয়মান (২০) ও ফাহিম আহমাদ রায়হান (২০) মারা গেছেন। নিহত উমার আয়মানের বাবা

কর্নেল (অব.) ফারুক আহমেদ। ফাহিমের বাবার নাম ইলিয়াস আহমেদ। আর দুর্ঘটনায় আহত ইশরাক আহমেদ সাবেক সেনাপ্রধান জেনারেল (অব.) আজিজ আহমেদের ছেলে। ইশরাক আহমেদ এখন সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে (সিএমএইচ) চিকিৎসাধীন।

কাফরুল থানার এসআই আলমগীর হোসেন জানিয়েছিলেন, দুর্ঘটনায় আহত সাবেক সেনাপ্রধান আজিজ আহমেদের ছেলে সম্মিলিত সামরিক হাসপাতালে চিকিৎসাধীন। গুরুতর আহত হয়েছেন গাড়িচালক মোহসিন। ফাঁকা রাস্তায় গাড়িটি হঠাৎ দুর্ঘটনায় পড়ার কারণ অনুসন্ধান চলছে। দুর্ঘটনাকবলিত গাড়ির নম্বর ঢাকা মেট্রো-ঘ-১৩-৩৯৭৯। পুলিশ বলছে, প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে চালক মোহসিন পেছনের সিটে বসা ছিলেন এবং রায়হানের (নিহত) হাতে ছিল গাড়ির স্টিয়ারিং। তারা নিকুঞ্জ এলাকা থেকে বেরিয়ে মহাখালী এলাকায় আসেন। সেখান থেকে সম্ভবত ইউটার্ন নিয়ে ফের উত্তরার দিকেই যাচ্ছিলেন। নিহত ফাহিমের বাড়ি নিকুঞ্জ আবাসিক এলাকার ৭ নম্বর রোডে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2021
Site Developed By Bijoyerbangla.com