1. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
মাত্র পাওয়াঃ আর কবে ভুল থেকে শিখবেন ক্রিকেটাররা, মাহমুদের প্রশ্ন - ২৪ ঘন্টাই খবর
শিরোনাম:
অবিশ্বাস্যঃ ফ্রাঞ্চাইজি ক্রিকেটের জন্য ১৩৯ বছরের ইতিহাস বদলাচ্ছে ইংল্যান্ড এইমাত্র পাওয়াঃ এশিয়া কাপের স্কোয়াডে নেই লিটন, সোহান ও ইয়াসির এইমাত্র পাওয়াঃ সাত কলেজের ভর্তি পরীক্ষা শুরু কাল এবার আশরাফুলের রেকর্ড ভেঙ্গে নতুন রেকর্ড গড়লেন মুশফিকুর রহিম মাত্র পাওয়াঃ এবার দারুণ সুখবর পেলেন ইন্জুরিতে থাকা লিটন দাস এইমাত্র পাওয়াঃ সপ্তাহে এক দিন এলাকাভিত্তিক শিল্পকারখানা বন্ধ, প্রজ্ঞাপন জারি ব্রেকিং নিউজঃ সাবেক ভিপি নুরকে ৭ দিনের মধ্যে আদালতের জরুরি নির্দেশ! জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে বিপর্যয়ের কারণ, নতুন ক্রাইসিসম্যানের আবির্ভাব মাত্র পাওয়াঃ সরকার জ্বালানির দাম বৃদ্ধি থেকে সরে আসবে কিনা, যা বললেন মন্ত্রিপরিষদ সচিব অবশেষে সাকিব বেটউইনারের সঙ্গে চুক্তি বাতিল করতে রাজি

মাত্র পাওয়াঃ আর কবে ভুল থেকে শিখবেন ক্রিকেটাররা, মাহমুদের প্রশ্ন

  • আপডেট করা হয়েছে: বুধবার, ৩ আগস্ট, ২০২২
  • ৪৯ বার পঠিত

বাংলাদেশ দলের ক্রিকেটারদের চোখেমুখে অন্ধকার গতকাল বিকেল থেকেই। হারারে স্পোর্টস ক্লাব মাঠে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে তিন ম্যাচ টি-টোয়েন্টি সিরিজের শেষটিতে হেরে যাওয়ার পর হতাশায় মুষড়ে

পড়েছেন সবাই। সঙ্গে হারের লজ্জা তো আছেই। জিম্বাবুয়ের মূল দুই বোলার চোটের কারণে এই সিরিজে খেলছেন না। তবু ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে ১৫৬ রান তাড়া করতে পারেনি বাংলাদেশ। গতকালের টি-টোয়েন্টি হারের

সেই রেশটা আজ সকালে বাংলাদেশ ওয়ানডে দলের অনুশীলনের শুরুতেও অনুভব হচ্ছিল। সচরাচর ক্রিকেটারদের মধ্যে যে খুনসুটি দেখা যায়, সেটি ছিল না। দলের সে বিমর্ষভাবটাই

যেন টিম ডিরেক্টর খালেদ মাহমুদের কণ্ঠে হতাশা হয়ে ঝরে পড়ল। টি-টোয়েন্টি সিরিজ হারের জন্য তিনি ক্রিকেটারদের সরাসরি দায়ী করছেন। দায়িত্ব নিতে বলছেন নিজেদের ব্যর্থতার। মাহমুদের কথা, ‘আমি খুব হতাশ। আমরা

বারবার বলি নিজেদের ভুল থেকে শিক্ষা নিতে। কিন্তু আমরা কবে সে শিক্ষাটা নেব। আমি পুরোপুরি ক্রিকেটারদের দোষ দেব। তাদের এক্সিকিউশনে সমস্যা ছিল।’ধীরলয়ের ব্যাটিংয়ের কড়া

সমালোচনা করতে গিয়ে দলের প্রতি ব্যাটসম্যানদের নিবেদন নিয়েও প্রশ্ন তুলেছেন তিনি, ‘এখানে আমাদের জেতাটাই স্বাভাবিক ছিল। হারটা ছিল অস্বাভাবিক। আমরা জানি

যে ওভারে আমাদের ১০-১২ করে লাগবে। কেউ দেখলাম যে একটাও ছয় মারার চেষ্টা করছে না। সবাই ২-১ করে নিচ্ছে। আমি একটা স্কোর করে নিজের জায়গাটা ঠিক রাখলাম, এটা কি ওই ধরনের

কিছু কি না, আমি ঠিক জানি না। আপনি যদি ১০০ স্ট্রাইক রেটে খেলেন, তাহলে এখানে রান তাড়া করে জিততে পারবেন না। একজন-দুজনকে তো শট খেলতে হবে। ওদের দুজন ব্যাটসম্যানের স্ট্রাইক

রেট দেখুন। এখানে ভিন্ন কিছু করার প্রয়োজন ছিল না। শর্ট বলকে যদি পুল করে ছক্কা মারার আত্মবিশ্বাস না থাকে, তাহলে তো মুশকিল।’ঘরোয়া টি-টোয়েন্টি প্রতিযোগিতায়

পারফর্ম করা ক্রিকেটারদের সুযোগ দিয়েও ফল পাচ্ছে না বাংলাদেশ। মাহমুদের হতাশার আরেকটি কারণ সেটি, ‘যাদের নেওয়া হয়েছে তারা সবাই ঘরোয়া

ক্রিকেটে ভালো করা ক্রিকেটার। সবাই পারফর্ম করেই এখানে এসেছে। মুনিম শাহরিয়ারের যদি কথা বলেন, পারভেজের কথা বলেন, দুজনই লোকাল টি-টোয়েন্টিতে পারফর্ম করা ক্রিকেটার। আপনি সেরা পারফর্মারদেরই তো নিয়ে এসেছেন। তারা যদি

পারফর্ম না করে তাহলে কী আর করার থাকে!’ সুযোগও যে কম দেওয়া হচ্ছে, তা–ও নয়। হুট করে কাউকে দলে নিয়ে তাঁকে এক ম্যাচ খেলিয়ে বাদ দেওয়ার ঘটনা এখন খুব কমই দেখা যায় বাংলাদেশ ক্রিকেটে। যাঁকে সুযোগ দেওয়া হয়, তাঁকে

নিজেকে প্রমাণের জন্য কমপক্ষে ৫-৬ ম্যাচ খেলানো হয়। মুনিম শাহরিয়ারকে যেমন ৫টি টি-টোয়েন্টি খেলানোর পর জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে শেষ ম্যাচ থেকে বাদ দেওয়া হয়েছে। তবু পারফর্ম না

করলে কী করণীয়, সে প্রশ্নের উত্তরটা মাহমুদ ক্রিকেটারদেরই দিতে বলছেন, ‘করণীয়টা কী এটা ক্রিকেটাররাই বলতে পারবে। এমন না যে ছেলেরা এখন দলে আসছে আর যাচ্ছে। তারা একটা

সময়ের জন্য সুযোগ পাচ্ছে। তারা জানে যে তাদের জায়গা নিয়ে এত কাড়াকাড়ি নেই। তাদের ঠিকঠাক সুযোগ দেওয়া হচ্ছে। এমন অবস্থায় তো মন খুলে খেলা উচিত। আমি ওই মন খুলে খেলাটা দেখতে পাচ্ছি না।’

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com