1. atikurrahman0.ar@gmail.com : Md Atikurrahman : Md Atikurrahman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ১৩০টি বিলাসবহুল বাস ২০২২ সালের ডিসেম্বর থেকে এ রুটে চলাচলের কথা রয়েছে - Online newspaper in Bangladesh

বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে, ১৩০টি বিলাসবহুল বাস ২০২২ সালের ডিসেম্বর থেকে এ রুটে চলাচলের কথা রয়েছে

  • আপডেট করা হয়েছে: মঙ্গলবার, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ১৮৩ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা: বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট (বিআরটি) সিস্টেমের আওতায় গাজীপুর থেকে রাজধানীর বিমানবন্দর স্টেশন পর্যন্ত ডেডিকেটেড বাস করিডোরে ১৩০টি বিলাসবহুল বাস পরিচালনা করবে সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষ। বিআরটি সিস্টেমটি ২০২২ সালের ডিসেম্বরে চালু হওয়ার কথা রয়েছে।

ঢাকা বাস র‌্যাপিড ট্রানজিট কোম্পানি লিমিটেডের ব্যবস্থাপনা পরিচালক সফিকুল ইসলাম ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “দেশের প্রথম বিআরটি পরিষেবা পরিচালনার জন্য আমরা মোট ১৩০ টি বিলাসবহুল বাস কিনব।

বাসগুলোর মধ্যে ৮০টি সিএনজি চালিত এবং ৫০ টি ব্যাটারি চালিত বৈদ্যুতিক বাস হবে। আমাদের পরামর্শদাতাদের ধারণা, ৮০টি সিএনজি চালিত বিশেষ বাস কেনার জন্য আমাদের ২০০ কোটি টাকা লাগবে। তবে বৈদ্যুতিক বাসের মূল্যের বিষয়ে এখনও চিন্তা করা হয়নি।”

তিনি আরও বলেন, “এই বাসগুলোতে ৭০ থেকে ৮০ জন যাত্রী পরিবহন করার ক্ষমতা থাকবে। এছাড়া দাঁড়ানোর জায়গাও থাকবে। বাসের মেঝে ও স্টপেজের প্ল্যাটফর্ম সমান স্তরে থাকবে। সুতরাং প্ল্যাটফর্ম ছাড়া যাত্রীরা উঠতে বা নামতে পারবে না।”

বৃহস্পতিবার (৯ সেপ্টেম্বর) এক সংবাদ সম্মেলনে সফিকুল ইসলাম বলেন, “সরকারি উদ্যোগে এটি হবে ঢাকা ও গাজীপুরের মধ্যে প্রথম এসি বাস পরিষেবা, যা আগামী বছর চালু হওয়ার কথা রয়েছে। এটি যাওয়া-আসায় মাত্র ৩৫ থেকে ৪০ মিনিট সময় নেবে এবং প্রায় ২০ হাজার যাত্রী প্রতি ঘণ্টায় যাতায়াত করতে পারবে।”

২০১২ সালে বিশ্বব্যাংক প্রকল্পটির সম্ভাব্যতা পরীক্ষা করে এবং একই বছরে সরকার প্রকল্পটি অনুমোদন করে।

সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের সম্প্রতি প্রকল্পের স্থান পরিদর্শন করে তিনি বলেছিলেন, গাজীপুর থেকে হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর পর্যন্ত বিআরটি প্রকল্পের চলমান নির্মাণ কাজ গাজীপুর এবং উত্তরের জেলার মানুষের জন্যও ভোগান্তির সৃষ্টি করছে।

প্রকল্পটি বিশ্বের সবচেয়ে ব্যয়বহুল বিআরটি প্রকল্প। যা ৪ হাজার ২০০ কোটি টাকার বাজেটে বাস্তবায়িত হচ্ছে।

বাংলাদেশ প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বুয়েট) নগর ও আঞ্চলিক পরিকল্পনা বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ড. মো. মুসলেহ উদ্দিন হাসান ঢাকা ট্রিবিউনকে বলেন, “বাংলাদেশে বিআরটি একটি বিশাল অবকাঠামো উন্নয়ন প্রকল্পে পরিণত হয়েছে, যা খুবই অপ্রত্যাশিত।”

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2021
Site Developed By Bijoyerbangla.com