1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. rabbimollik2002@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. abur9060@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
ফখরুল চান নয়াপল্টন, তথ্যমন্ত্রী দেখালেন পূর্বাচল - ২৪ ঘন্টাই খবর

ফখরুল চান নয়াপল্টন, তথ্যমন্ত্রী দেখালেন পূর্বাচল

  • আপডেট করা হয়েছে: বুধবার, ২৩ নভেম্বর, ২০২২
  • ৪০ বার পঠিত

কোনো ঝামেলা না করে আগামী ১০ ডিসেম্বর নয়াপল্টনে সমাবেশ করার ব্যবস্থা নিতে আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেন, ‘তারা (পুলিশ) সমাবেশের স্থান দেয়নি এখনো। পল্টনে সমাবেশ করার কথা বলা হয়েছে। কোনো ঝামেলা না করে সমাবেশের স্থানের অনুমতি দিন।’

তিনি বলেন, ‘দায়িত্ব এখন সরকারের, বিএনপি নিয়ম মেনে সমাবেশের আবেদন করেছে।’

বুধবার (২৩ নভেম্বর) জাতীয় প্রেস ক্লাবে অনুষ্ঠিত এক সেমিনারে এসব কথা বলেন মির্জা ফখরুল। ‘দেউলিয়াত্ব ঘোচাতে দুর্ভিক্ষের নাটক? দেশ কোন পথে’ শীর্ষক এ সেমিনারের আয়োজন করে নাগরিক ঐক্য।

অন্যদিকে আগামী ১০ ডিসেম্বর রাজধানীতে বিএনপি যে ধরনের সমাবেশ করতে চাইছে, তার জন্য পূর্বাচল ছাড়া জায়গা নেই বলে মনে করেন তথ্যমন্ত্রী ও আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক হাছান মাহমুদ। তিনি বলেন, বিএনপি নেতারা যত মানুষ আনবেন বলছেন, সেটির জন্য সোহরাওয়ার্দী উদ্যানও যথেষ্ট নয়।

বিএনপি বিশৃঙ্খলা করতেই বিএনপি নয়াপল্টনে সমাবেশের অনুমতি চাইছে বলে মনে করেন মন্ত্রী। বলেন, বিরোধী দলটি সেদিন অগ্নিসন্ত্রাস করতে চায়, মানুষের সম্পদের ওপর হামলা করতে চায়। এভাবে তারা বিশেষ একটি পরিস্থিতি তৈরি করতে চায়।

হাছান বলেন, ‘তারা কেন নয়াপল্টনের সামনে সমাবেশ করতে চায়, সেটি সহজেই অনুমান করা যায়। তারা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করতে চায়। হেফাজতে ইসলাম যে ধরনের বিশৃঙ্খা সৃষ্টি করেছে, তারাও সেটা করতে চায়। তারা প্রয়োজনে গাড়িঘোড়া ভাঙচুর, অগ্নিসন্ত্রাস করতে চায়। মানুষের সম্পদের ওপর হামলা পরিচালনা করতে চায়। এভাবে তারা বিশেষ একটি পরিস্থিতি তৈরি করতে চায়।’

তিনি আরও বলেন, ‘সোহরাওয়ার্দী উদ্যানও তত বড় না। কাজেই সে রকম সমাবেশ করতে হলে পূর্বাচল ছাড়া আর কোনো জায়গা আমি দেখছি না। কারণ ১০ কিংবা ২০ লাখ মানুষের জন্য পূর্বাচল ছাড়া তো আর কোনো জায়গা আমরা দেখছি না।’

এদিকে পুলিশের পক্ষ থেকে আনুষ্ঠানিক বক্তব্য না এলেও সরকার ও সরকারি দল আওয়ামী লীগের নেতারা এ নিয়ে বক্তব্য রাখছেন।

বিএনপি নেতারা জানিয়েছেন, পুলিশের পক্ষ থেকে মৌখিকভাবে ঢাকার বাইরের এই এলাকা ছাড়াও গাজীপুরের টঙ্গীর ইজতেমা ময়দান বা মিরপুরের কালসী বেছে নেয়ার কথা বলা হয়েছে। তবে বিএনপি নয়াপল্টনই চায়।

সেমিনারে মির্জা ফখরুল আরও বলেন, ‘আওয়ামী লীগ অনেক পুরোনো রাজনৈতিক দল, তাদের জনভিত্তি আছে, কিন্তু ক্ষমতার থাকার লালসায় তারা এখন দেউলিয়া হয়ে গেছে।’

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘নতুন করে গায়েবি মামলা শুরু করেছে। তারা ককটেল ফাটানোর কথা বললো যা কেউ শোনেননি, দেখেনি তা নিয়ে গায়েবি মামলা দিচ্ছে। পুরোনো নাটক শুরু করেছে সরকার। সরকার পতনের আন্দোলন ভিন্নখাতে নিতেই আগুন সন্ত্রাস আর জঙ্গি নাটকের ধুয়া তুলছেন ক্ষমতাসীনরা। দেশে জঙ্গি ছিনতাই নাটক তৈরি করা হচ্ছে— উদ্দেশ্য জনগণের মূল দাবি ভিন্নখাতে নিতে চায় সরকার।’

এদিকে রাজধানীতে বিএনপির সমাবেশের দিন আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীরা রাজধানীতে পাহারা দেবে বলে জানিয়েছেন হাছান মাহমুদ। বলেন, ‘১০ ডিসেম্বর আমাদের কর্মীরা, আমাদের নেতারা ওয়ার্ডে-ওয়ার্ডে সতর্ক পাহারায় থাকবে।’

বিএনপি নেতারা ১০ ডিসেম্বর নিয়ে বাগাড়ম্বর করছে জানিয়ে তথ্যমন্ত্রী বলেন, ‘বাংলায় একটা কথা আছে খালি কলসি বাজে বেশি। মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীরসহ বিএনপি নেতাদের বক্তব্য হচ্ছে খালি কলসির মতোই। ১০ ডিসেম্বর নিয়ে যেভাবে বাগাড়ম্বর তারা করছেন, এতে মনে হচ্ছে তাদের খালি কলসি বেশি বাজছে।’

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com