1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  5. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
এবার নারীদের হিজাব এবং পুরুষের টাকনুর ওপর পোশাক পরে অফিসে আসার নির্দেশ বাবা-মা আমাকে জ’ন্ম দিতে চায়নি,তবুও আমি হয়েচ ! এলোভেরা যেভাবে রাতে মাত্র ৫ মিনিট ব্যবহার করলেই পাবেন ফর্সা, উজ্জল ও দাগমুক্ত ত্বক শ্যাম্পুর সঙ্গে চিনি মেশালে মু’হূর্তেই মিলবে যে আ’শ্চর্য উপকার! ৩৫ হাজার ফুট উঁচুতে মধ্য আকাশে জন্ম নিলো শিশু, আজীবন আকাশ ভ্রমণ ফ্রি ! দাওয়াত ছাড়া বিয়ে খেয়ে আবার উপহার নিয়ে পলায়ন! ভুল করেও এই সব খাবার দ্বিতীয় বার গরম করে খাবেন না হতে পারে বিপদ ! মোরগের হা’তে পুলিশ কর্মকর্তার মৃ’ত্যু! মহানবী (সাঃ) যেভাবে চুল কাটতে নিষেধ করেছেন ! স্বা’মী’কে মা’টি’তে পুঁ’তে রেখে উপ’রে খা’ট বিছি’য়ে ঘুম স্ত্রী’র

প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর এক হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া ঘটনা

  • প্রকাশিত: ০১:৫৯ pm | শনিবার ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০
  • ৪৯০ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
প্রিয় নবী মুহাম্মদ (সাঃ) এর এক হৃদয় ছুঁয়ে যাওয়া ঘটনা।তিনদিন হলো হযরত মুহাম্মদ (সা.) মদি’নাতে নেই। কেউ জানেনা নবীজি কো’থায়।ওমর ফারুক

(রাযিঃ) মুক্ত তরবারি হাতে ঘোষণা দিলেন, “যদি নবীজির কোন কিছু হয় তবে আমি ওমর বলছি ম’ক্কার একটা মুনাফিকও

আস্ত শরীরে থাকবে না।“ এদিকে আবু বকর (রাযিঃ) বললেন থাম ভাই চল নবীজির তালাস করি। দুই জনে মদিনা থেকে মক্কার উদ্দেশ্যে রওনা হলেন। মরুভূমি

পেরিয়ে পাহাড়ের এলাকাতে আসলেন। একটু দূরে দেখলেন এক রাখাল দাড়িয়ে আছে। আবু বকর (রাযিঃ) ও ওমর ফারুক (রাযিঃ) রা’খালকে জিজ্ঞেস করলেন, তুমি কি মুহাম্মদ (সা.) কে

দেখেছ? রাখাল উত্তরে বলল আমি মুহাম্মদ (সা.) কে চিনি না এবং আপনাদেরও চিনি না।তবে ঐ পাহাড়ের উপরে এক’জন লোক ইয়া উম্মাতি, ইয়া উম্মাতি বলে কাঁদছেন।

আবু বকর (রাযিঃ) ও ওমর ফারুক (রাযিঃ) বুঝতে বাকি ছিলনা ঐ লোক আর কেউ না দয়াল ন’বীজি হযরত মুহাম্মদ (সা.)। রাখাল আবার বলল লোকটির

সাথে সাথে আমার সব উঠ, ভেড়াগুলোও কাঁদতেছে আর খাওয়া বন্ধ করে দিছে। আপনারা উনাকে নিয়ে যান তা না হলে

আমার সব উঠ, ভেড়াগুলো কাঁদতে কাঁদতে মরে যাবে। আবু বকর (রাযিঃ) ও ওমর ফারুক (রাযিঃ) পা’হাড়ে গিয়ে দেখলেন দয়াল নবীজি সেজদা-রত অবস্থায় ইয়া

উম্মাতি, ইয়া উম্মাতি বলে কাঁদছেন।নবীজির কষ্টে আবু বকর (রাযিঃ) বললেন ইয়া রসুলুল্লাহ আমি আবু বকর ইসলাম গ্রহণ করার পর থেকে যত আমল করেছি সব