1. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
পূজা মন্ডবে মূর্তির পায়ে পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননা ব্যাপক সংঘর্ষ! - ২৪ ঘন্টাই খবর
শিরোনাম:

পূজা মন্ডবে মূর্তির পায়ে পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননা ব্যাপক সংঘর্ষ!

  • আপডেট করা হয়েছে: বুধবার, ১৩ অক্টোবর, ২০২১
  • ১৫১৯ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
পূজা মন্ডবে মূর্তির পায়ের পবিত্র কোরআন রেখে অবমাননা ব্যাপক সংঘর্ষ।কুমিল্লায় নানুয়া দিঘীর পাড়ে পূজা মন্ডবে মূর্তির পায়ের নিচে কোরআন শরীফ পাওয়া গেছে।এই নিয়ে এলাকায় ব্যাপক সংঘর্ষ সৃষ্টি হয়েছে।পুলিশের

সাথে সাধারন মুসলমানদের দফায় দফায় সংঘর্ষ চলছে এতে করে কয়েক জন আহত হয়েছেন। স্হানীয় পুলিশের ওসি পবিত্র কোরআনটি উদ্ধার করেন।এলাকার পরিস্থিতি ভয়াবহ।

ঘটনাটি সুষ্ঠু তদন্ত করে মূল হোতা দের কঠোর শাস্তির আওতায় আনা হোক বলে দাবি সবার। বিস্তারিত আসিতেছে…..

আরো পড়ুন=>>মাকে হত্যার দায়ে ছেলের ফাঁসি
ময়মনসিংহের ভালুকায় মাকে কুপিয়ে হত্যার ঘটনায় মো. মোস্তফা (৫০) নামের এক আসামির মৃত্যুদণ্ড দিয়েছেন আদালত। একইসঙ্গে, তাকে ১০ হাজার টাকা অর্থদণ্ড দেওয়া হয়।

সোমবার (১১ অক্টোবর) দুপুরে জেলা ও দায়রা জজ আদালতের বিচারক মো. হেলাল উদ্দিন এ রায় ঘোষণা করেন।

মৃত্যুদণ্ডপ্রাপ্ত মো. মোস্তফা জেলার ভালুকা উপজেলার জামিরদিয়া ডুবুলিয়াপাড়া নিবাসী মৃত আব্দুল জব্বার মিয়ার ছেলে।

রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ময়মনসিংহ জেলা ও দায়রা জজ আদালতের সরকারি কৌঁসুলি (পিপি) কবীর উদ্দিন ভূইয়া এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন।

মামলার সংক্ষিপ্ত বিবরণে জানা যায়, উপজেলার জামিরদিয়া ডুবুলিয়াপাড়া নিবাসী মৃত আব্দুল জব্বার জীবদ্দশায় তার সব সম্পত্তি চার ছেলেমেয়ের মধ্যে শরিয়তের বিধান অনুযায়ী ভাগ করে দেন। এরপর থেকে আব্দুল জব্বারের স্ত্রী মরিয়ম বেগম (৭০) স্বামীর ভিটায় একাই বসবাস করতেন।

মোস্তফা তার ভাগের ৯ শতাংশ জমি মায়ের কাছে বিক্রি করে দেন। পরে বিক্রি করা ওই জমি বেআইনিভাবে দখলে নিতে ২০১৮ সালের ১৩ ডিসেম্বর বাড়ির উঠানে পাটি বিছিয়ে ঘুমিয়ে থাকা বৃদ্ধা মাকে দা দিয়ে উপর্যুপরি কুপিয়ে মৃত্যু নিশ্চিত করে পালিয়ে যান।

এ ঘটনায় নিহতের অপর ছেলে শাহ জালাল বাদী হয়ে ঘটনার দিনই পাঁচজনকে আসামি করে ভালুকা থানায় মামলা করেন। তদন্ত শেষে পুলিশ ২০১৯ সালের ১২ ফেব্রুয়ারি আসামির বিরুদ্ধে অভিযোগপত্র দাখিল করেন। মোট ১১ জন সাক্ষীর সাক্ষ্য নেওয়া শেষে অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় সোমবার আদালত তার মৃত্যুুদণ্ডের আদেশ দেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com