1. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. [email protected] : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. [email protected] : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
পুলিশ কার্যালয় থেকে বেরিয়ে সোহেল বললেন ‘আর বাইকই চালাব না - ২৪ ঘন্টাই খবর

পুলিশ কার্যালয় থেকে বেরিয়ে সোহেল বললেন ‘আর বাইকই চালাব না

  • আপডেট করা হয়েছে: মঙ্গলবার, ২৮ সেপ্টেম্বর, ২০২১
  • ২৫৬ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা: নিজের মোটরসাইকেলে আগুন লাগানোর পর প্রায় ১২ ঘণ্টা পুলিশের সঙ্গেই ছিলেন আলোচিত পাঠাও চালক শওকত আলী সোহেল। সোমবার রাত পৌনে ৯টার দিকে ঢাকা মহানগর পুলিশের গুলশান বিভাগের উপকমিশনারের কার্যালয় থেকে বের হন তিনি।

করোনাভাইরাস মহামারীর কারণে ক্ষতিগ্রস্ত কেরানীগঞ্জের স্যানিটারি ব্যবসায়ী শওকত আলী প্রায় ৯ লাখ টাকা দেনা মাথায় নিয়ে দেড় মাস আগে মোটরসাইকেল নিয়ে রাইড সেবা দিতে নামেন।

দুই ছেলে ও এক মেয়েসহ পাঁচ সদস্যের পরিবারের জীবিকার উৎস ছিল এই বাহন। কিন্তু ট্রাফিক পুলিশের আচরণে ক্ষুব্ধ হয়ে সোমবার সকালে সেটিকেই তিনি পুড়িয়ে দেন।

দিনভর রাতে বের হয়ে গুলশান বিভাগের ডিসি কার্যালয়ের সামনে দাঁড়িয়ে সোহেল বলেন, ‘আর বাইকই চালাব না। সারাদিন মোটরসাইকেল চালাব আর অ্যাপ কোম্পানি ২৫ পারসেন্ট টাকা কেটে নিয়ে যাবে- এটা হয় না। আবার অ্যাপ ছাড়া বাইক চালালে পুলিশ মামলা দেবে- এইসব ক্ষোভেই আমি বাইক জ্বালিয়ে দিয়েছি।’

দিনের ঘটনা বর্ণনা করে তিনি বলেন, সকাল সাড়ে ৮টার দিকে বাসা থেকে নিজের পুরনো টিভিএস ফ্লেম মোটরসাইকেলটি নিয়ে বের হয়ে যাত্রী নিয়ে গুলশানে যান। লিংক রোডের মোড়ে আরেক যাত্রী তোলার জন্য কথা বলছিলেন। সেই সময়ই পুলিশ এসে তার মোটরসাইকেলের কাগজ চায়।

দুই সপ্তাহ আগে মামলা খাওয়ার কথা জানিয়ে আর মামলা না দিতে অনুরোধ করলেও ‘রাইড শেয়ারিং অ্যাপ’ এর পরিবর্তে সরাসরি যাত্রী তোলার অভিযোগে পুলিশ কর্মকর্তা তার বিরুদ্ধে মামলা করতে উদ্যত হন।

এবিষয়ে জানতে চাইলে ঢাকা মহানগর পুলিশের গণমাধ্যম বিভাগের উপকমিশনার ফারুক হোসেন সাংবাদিকদের বলেন, তার বিরুদ্ধে কোনো মামলা হয়নি। ডিসি গুলশান কথা বলার জন্য তাকে ডেকেছিলেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com