1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. rabbimollik2002@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. abur9060@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
পাকিস্তানি কায়দায় আমাদের আঘাত করেছেন, জেলা প্রশাসককে আইভী - ২৪ ঘন্টাই খবর

পাকিস্তানি কায়দায় আমাদের আঘাত করেছেন, জেলা প্রশাসককে আইভী

  • আপডেট করা হয়েছে: শুক্রবার, ২৩ ডিসেম্বর, ২০২২
  • ১৮৪ বার পঠিত

নারায়ণঞ্জের ঐতিহ্যবাহী শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান প্রিপারেটরি স্কুলের নাম পরিবর্তন করে ‘নারায়ণগঞ্জ কালেক্টরেট প্রিপারেটরি স্কুল’ করার প্রতিবাদ জানিয়েছেন স্কুলের সাবেক শিক্ষার্থী ও নগরের বিশিষ্টজনেরা। গত ১৬ মার্চ ম্যানেজিং কমিটির সভায় স্কুলের

নাম পরিবর্তনের সিদ্ধান্ত হয়। পদাধিকার বলে স্কুলের ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মঞ্জুরুল হাফিজ এ সিদ্ধান্ত নেন। জেলা প্রশাসকের এমন সিদ্ধান্তের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার জেলায় মানববন্ধন করা হয়।

মানববন্ধনে স্কুলের আগের নাম ফিরিয়ে দেওয়ার দাবি জানিয়ে স্কুলের প্রাক্তন ছাত্রী ও নারায়ণগঞ্জ সিটি কর্পোরেশনের মেয়র ডা. সেলিনা হায়াৎ আইভী জেলা প্রশাসকের উদ্দেশে বলেন, পাকিস্তানি কায়দায় আপনি আমাদের আঘাত করেছেন।

পাকিস্তানিরা রাতের আঁধারে আমাদের ওপর ঝাঁপিয়ে পড়েছিল। আপনি রাতের আঁধারে, গোপনে স্কুলের নাম পরিবর্তন করেছেন। জেলা প্রশাসক আমাদের অন্তরকে, আমাদের শৈশবকে, আমাদের ইতিহাসকে, আমাদের ঐতিহ্যকে আঘাত করেছেন।

তিনি বলেন, আমাদের না জানিয়ে স্কুলের নামের সঙ্গে ‘কালেক্টরেট’ শব্দ যুক্ত করে আমাদের অসম্মানিত করা হয়েছে। একটি ইতিহাসকে মুছে ফেলার চেষ্টা করা হয়েছে।

মেয়র আইভীর সভাপতিত্বে মানববন্ধনে বক্তব্য রাখেন স্কুলের সাবেক ছাত্রী ড. সাদিয়া আফরোজ মুক্তি, ‘আমরা নারায়ণগঞ্জবাসী’র সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা নুর উদ্দিন, নারায়ণগঞ্জ সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি আব্দুস সালাম, সিটি কর্পোরেশনের কাউন্সিলর অসিত বরন বিশ্বাস, মাকসুদুল আলম খন্দকার খোরশেদ, শওকত হাশেম শকু, স্কুলের সাবেক ছাত্র ও ব্যবসায়ী আরাফাত আহমেদ রাজিব প্রমুখ। স্কুলের কয়েকশত সাবেক শিক্ষার্থী ও নগরবাসীর উপস্থিতিতে মানববন্ধন কার্যত সমাবেশে রূপ নেয়। স্কুলের বেশ কয়েকজন সাবেক শিক্ষিকাও মানববন্ধনে উপস্থিত ছিলেন।

বক্তব্যে মেয়র আরও বলেন, যেখানে নারায়ণগঞ্জের কোথাও কালেক্টরেট শব্দটি ব্যবহৃত হচ্ছে না, সেখানে কেন জেলা প্রশাসক স্কুলের নামের সাথে কালেক্টরেট শব্দ জুড়ে দিচ্ছেন বুঝতে পারছি না। এছাড়া স্কুলের একটি ভবনের নামকরণ সাবেক জেলা প্রশাসক রাব্বি মিয়ার নামে করা হয়েছে। এ ভবন জেলা প্রশাসকের টাকায় করা হয়নি। স্কুলের প্রাক্তন প্রধান শিক্ষিকা আয়শা জালাল তিল তিল করে টাকা জমিয়ে ছিলেন। সেই টাকায় স্কুলের নতুন ভবন হয়েছে। তাহলে স্কুলে ভবনের নাম ডিসি রাব্বি মিয়া ভবন হবে কেন?

তিনি বলেন, শিক্ষিকা আয়শা জালালের হাত ধরে আমরা নারায়ণগঞ্জের হাজার হাজার ছাত্র-ছাত্রী বড় হয়েছি। আমরা আজ বিভিন্ন স্থানে প্রতিষ্ঠিত। আমরা শ্রদ্ধেয় সে শিক্ষিকার নামে স্কুল ভবনের নামকরণের দাবি জানাচ্ছি।

আইভী বলেন, স্কুলের জায়গাটির ব্যাপারে সবচেয়ে বেশি যার অবদান তিনি ক্যাপ্টেন রহমান। ওনার নামে একটি অডিটোরিয়াম হবে। স্কুলের প্রথম ম্যানেজিং কমিটির সভাপতি এইচ টি ইমাম। তার একটি প্রতিকৃতি আমরা স্কুলে স্থাপন করব।

তিনি বলেন, আমরা জেলা প্রশাসকের কাছে দাবি জানাব তিনি যেন আলোচনার মাধ্যমে সমস্যার সমাধান করেন। সমাধান না পেলে আমরা পরবর্তী কর্মসূচি ঘোষণা করব।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com