1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. rabbimollik2002@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. abur9060@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
পরকীয়ার জের ধরে ননদকে হ'ত্যার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত! - ২৪ ঘন্টাই খবর

পরকীয়ার জের ধরে ননদকে হ’ত্যার ঘটনায় শিক্ষিকা বরখাস্ত!

  • আপডেট করা হয়েছে: শনিবার, ১৩ আগস্ট, ২০২২
  • ২১৩ বার পঠিত

পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় স্বামী ও আপন ভাইয়ের স্ত্রীর পরকীয়ার জেরে খুন হন শাম্মী আক্তার (৪০) নামের এক বিউটিশিয়ান। এই ঘটনা নিহেতর ভাবি, কে এম লতীফ ইনস্টিটিউশনের সিনিয়র শিক্ষিকা আয়শা আখতার রোজিকে (৫০) পদ থেকে সাময়িক বরখাস্ত করা হয়েছে। গতকাল

বৃহস্পতিবার বিকেলে স্থানীয় সংসদ সদস্য এবং বিদ্যালয়ের আহ্বায়ক কমিটির সভাপতি ডা. রুস্তম আলী ফরাজীর সভাপতিত্বে ঢাকায় সরকারী হিসাব সম্পর্কিত স্থায়ী কমিটির সভাকক্ষে জরুরি সভায় এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। মামলা সূত্রে জানা যায়, শাম্মী ১৩ বছর আগে প্রথম

স্বামী ফিরোজ আলমের সঙ্গে বিচ্ছেদের পর দুই সন্তান নিয়ে থানা পাড়ায় ভাড়া থাকতেন। পৌর শহরের কে এম ল’তীফ সুপার মার্কেটে শাম্মী বিউটি পার্লারের ব্যবসা করতেন। গত দু’বছর আগে সালেকিনকে বিয়ে করেন। শাম্মী এবং সালেকিনের বিবাহবার্ষিকী উপলক্ষে

সালেকিন ঘটনার দিন গত রোববার সকালে ঢাকা থেকে মঠবাড়িয়া আসেন। বিবাহবার্ষিকীর জন্য ওইদিন রাতে অনুষ্ঠান শেষে সালেকিন ও ভাবি আয়শা তাদের থানাপাড়ার বাসায় ছিলেন। রাতের খাবার খেয়ে সবাই ঘুমিয়ে পড়েন। রাত ৩টার দিকে শাম্মী ঘুম থেকে জেগে

সালেকিনকে বিছানায় না পেয়ে রুম থেকে বের হয়ে ভাবির রুমে ঢুকে দুজনকে একসঙ্গে দেখে ফেলেন। এ নিয়ে কথা-কাটাকাটির একপর্যায়ে সালেকিন এবং আয়শা দুজনে মিলে শাম্মীর মুখ চেপে বালিশ দিয়ে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেন। এরপর সালেকিন ও আয়শা দুইজনে

শাম্মীকে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করে। এ সময় তারা হার্ট অ্যাটাক করে শাম্মীর মৃত্যু হয়েছে বলে প্রচার করেন। পর দিন সোমবার দুপুরে পুলিশ ম’ঠবাড়িয়া উ’পজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্স থেকে শাম্মী আক্তারের লা’শ উ’দ্ধার করে

ময়নাতদন্তের জন্য পিরোজপুর জেলা মর্গে পাঠায়। এ ঘটনায় শাম্মীর ছেলে সাইম আলম (১৭) বাদী হয়ে ওইদিন সোমবার রাতে বাবা শেখ সিরাজুস সালেকিন (৩৩) ও মামি আয়শা আখতার রোজিকে আসামি করে থানায়

হত্যা মামলা করেন। পুলিশ ওই রাতে সালেকিন ও আয়শাকে গ্রেপ্তার করে গত মঙ্গলবার সকালে দুজনকে আদালতে সোপর্দ করেন। এদিকে মামলা দায়েরের একদিন পরে মামলার তদন্তকারী কর্মকর্তা, মঠবাড়িয়া থানার উপপরিদর্শক (এসআই) জেন্নাত আলীকে প্রত্যাহার

করে পিরোজপুর পুলিশ লাইন্সে সংযুক্ত করা হয়। মঠবাড়িয়া থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) নূরুল ইসলাম বাদল জানান, সিরাজুস সালেকীন আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন। আ’য়শার সাত দিনের রিমান্ডের আবেদন করা হয়েছে। আদালত আগামী ১৬ আগস্ট রিমান্ড আবেদনের শুনানির দিন ধার্য্য করেছেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com