1. atikurrahman0.ar@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  2. Mijankhan298@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  3. rabbimollik2002@gmail.com : Bijoyerbangla News : Bijoyerbangla News
  4. msthoney406@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
  5. abur9060@gmail.com : বিজয়ের বাংলা : বিজয়ের বাংলা
দু'দিনেই উঠে গেল কার্পেটিং, হাত দিয়ে দেখছে শিশুরা! - ২৪ ঘন্টাই খবর

দু’দিনেই উঠে গেল কার্পেটিং, হাত দিয়ে দেখছে শিশুরা!

  • আপডেট করা হয়েছে: মঙ্গলবার, ২৮ ডিসেম্বর, ২০২১
  • ৭৮৯ বার পঠিত

ঢাকার ধামরাইয়ের বালিয়া ইউনিয়নের ডাকাতমারা থেকে টেটাইল পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক সংস্কারে নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহারসহ অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া গেছে। সড়কটি সংস্কারের পর দু’দিনের মাথায় কার্পেটিং উঠে যাওয়ায় এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভ বিরাজ করছে। সড়কের

কার্পেটিংয়ের গুণগত মানোন্নয়নের দাবিতে গতকাল সোম ও গত রোববার এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেছেন।এক কোটি ৪৪ লাখ টাকা ব্যয়ে ধামরাইয়ের ডাকাতমারা থেকে টেটাইল পর্যন্ত দুই কিলোমিটার সড়ক সংস্কারের কার্যাদেশ পায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ‘ইশরাত বিল্ডার্স’। সড়ক

সংস্কারের নির্ধারিত সময় তিন মাস আগেই শেষ হলেও কাজ শেষ হয়নি। বর্তমানে ঢাকা-টাঙ্গাইল আঞ্চলিক মহাসড়ক সংলগ্ন মাদারপুর মিলগেট বাসস্ট্যান্ড থেকে টেটাইল পর্যন্ত নিম্নমানের উপকরণ দিয়ে মেকাডম করার পর গত শুক্রবার থেকে কার্পেটিংয়ের কাজ শুরু করা হয়। কিন্তু

নিম্নমানের বিটুমিন, পাথর, সুরকিসহ অন্যান্য উপকরণ দিয়ে কার্পেটিং করার দু’দিনের মাথায় রোববার থেকেই খাগুটিয়া, মাদারপুর মিলগেট ও টেটাইল এলাকায় কার্পেটিং উঠে যায় এবং বিভিন্ন স্থানে ফাটল দেখা দেয়। উঠে যাওয়া কার্পেটিংয়ের ভিডিও ফেসবুকে ভাইরাল হলে

এলাকাবাসীর মধ্যে ক্ষোভের সৃষ্টি হয়। পরে কাজের গুণগত মানোন্নয়নের দাবিতে এলাকাবাসী বিক্ষোভ করেন।সোমবার ঘটনাস্থলে গেলে দেখা যায়, সড়কটির কার্পেটিং উঠে যাওয়া স্থানগুলোতে নতুনভাবে কার্পেটিং এবং রোডরোলার দিয়ে তা সমান করা হচ্ছে। এ সময় ঠিকাদারের

লোকজন সাংবাদিকদের ম্যানেজ করারও চেষ্টা করেন। এলাকাবাসীর মধ্যে বাদশা মিয়া, সাইফুল ইসলামসহ অনেকে জানান, রাতেও কার্পেটিংয়ের কাজ করেছেন ঠিকাদারের লোকজন। তা অস্বীকার করেন ঠিকাদার সান্টু মিয়া।স্থানীয়রা অভিযোগ করে বলেন, উপজেলা

প্রকৌশলী অফিসের কর্মকর্তাদের যোগসাজশের কারণে সড়ক সংস্কারকাজের গুণগত মানোন্নয়ন করছেন না ঠিকাদার। শুরু থেকেই এলাকাবাসী উন্নতমানের উপকরণ দিয়ে কাজ করার জন্য অনুরোধ করে এসেছেন। কিন্তু ঠিকাদার তা মানছেন না। উল্টো ঠিকাদার এলাকাবাসীর বিরুদ্ধে চাঁদা দাবির অভিযোগ এনে পুলিশ দিয়ে গ্রেপ্তারের হুমকি দিয়েছেন।এ বিষয়ে ঠিকাদার সান্টু মিয়া নিম্নমানের সামগ্রী ব্যবহার করার কথা

অস্বীকার করে বলেন, তার কাজের কোনো ত্রুটি হয়নি। উপকরণ যেখানে যা দেওয়ার কথা, সবই দেওয়া হয়েছে। তিনি উল্টো অভিযোগ করেন, এলাকাবাসীই তার কাজে বাধা দিয়ে ও সড়কের কার্পেটিং উঠিয়ে প্রায় সাড়ে তিন লাখ টাকার ক্ষতি করেছে।এ ব্যাপারে ধামরাই উপজেলা প্রকৌশলী আজিজুল হক বলেন, সড়কের কার্পেটিংয়ের কাজে বাধা দেওয়ার খবর পেয়ে তিনি পুলিশকে বিষয়টি জানিয়ে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছেন। তার কাছে সড়ক সংস্কারকাজের মান ভালোই মনে হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরো খবর পড়ুন
© All rights reserved 2022
Site Developed By Bijoyerbangla.com