1. skarman0199094@gmail.com : Sk Arman : Sk Arman
  2. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD : MD Atikurrahaman
  3. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  4. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  5. rujina666666@gmail.com : Rujina Akter : Rujina Akter
  6. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  7. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 

গাড়িতে উঠলেই বমি পায়? জেনে নিন এর প্রতিকার

  • প্রকাশিত: ০৭:২২ am | রবিবার ২১ মার্চ, ২০২১
  • ৩৩৮ বার পঠিত

স্বদেশ বাংলা:
গাড়িতে উঠলেই বমি পায়? জেনে নিন এর প্রতিকার।বাস, ট্রেন বা লঞ্চ ইত্যাদি যেকোনো যানবাহনে দীর্ঘ’সময় ভ্রমণ করলে অনেকেরই বিভিন্ন শারীরিক অস্বস্তি দেখা দেয়। যেমন- মাথা ঝিম ঝিম করা, মাথা ঘোরা, মাথা ব্যথা করা, বমিবমি ভাব

লাগা বা বমি হওয়া ইত্যাদি।যাত্রাপথের এই শারীরিক অস্বস্তি মোশন সিকনেস বা গতিজনিত অ’সুস্থতা নামে বহুল প্রচলিত।মোশন সিকনেস কিন্তু আসলে কোনো রোগ নয়- এটি একটি বিশেষ অবস্থাজনিত শারীরিক স’মন্বয়হীনতা। এটি শিশুর বেশি হলেও যে কারো ক্ষেত্রেই এমনটি হতে

পারে। বিশেষ করে নারীর এই সমস্যা আরো বেশি হয়। মোশন সিকনেসের প্রধান কারণ সংবেদনজনিত অসামঞ্জস্য। গতিজনিত অবস্থায় ভে’স্টিবুলার সিস্টেম এবং দৃষ্টিজনিত সিস্টেম মস্তিষ্কে মিশ্র সংকেত পাঠালে গতি এবং জড়তার অসঙ্গতিপূর্ণ অবস্থানের জন্য সমন্বয়হীনতা থেকে তৈরি হয় সংবেদী

অসামঞ্জস্য। যানবাহনের প্রচণ্ড দুলুনি ছাড়াও যাত্রার পূর্বে বা যাত্রাকালে অস্বাস্থ্যকর এবং গুরুপাক খাদ্যগ্রহণ, অতিরিক্ত ক্লান্তি, পাকস্থলির প্রদাহ বা অন্যান্য হজমজনিত স’মস্যায় মোশন সি’কনেস আরো তীব্র আকার ধারণ করতে পারে। যাত্রাপথের বিড়ম্বনাময় এই মোশন সিকনেস প্রতিহত

করতে প্রাথমিকভাবে কিছু প্রস্তুতি নেওয়া যেতে পারে-যাত্রাপথে বাস, নৌকা, গাড়ি বা উড়ো’জাহাজ ইত্যাদি যানবাহনের সামনের আসনের দিকে না তাকিয়ে রাস্তার দিকে তাকিয়ে প্রাকৃতিক শোভা উপভোগ করুন। এতে গতিজনিত ভারসাম্য ও দৃষ্টির মাঝে সমন্বয়হীনতা ব’হুলাংশে কমে যাবেযানবাহনের ভেতরে কোনো উৎকট গন্ধ থাকলে তা দূর করতে ভালো মান এবং ঘ্রাণের এয়ার

ফ্রেশনার ব্যবহার করুন।ব্যক্তিগত গাড়িতে উঠলে সুযোগ বুঝে চলতি পথে কিছুক্ষণের যাত্রাবিরতি নিতে পারেন।যাত্রাকালে আসনে কুঁজো হয়ে বা উবু হয়ে বসে মোবাইল ফোন বা ট্যা’বের স্ক্রিনে না তাকানোই উত্তম।ভ্রমণের সময় মন ভালো রাখার চেষ্টা করুন। গান শুনুন, সহযাত্রীর সাথে আড্ডা দিন অথবা ভ্রমণে আনন্দ করার কথা

ভাবুন।যাত্রা শুরুর আগে বা যাত্রা পথে বেশি ফ্লেভারযুক্ত খাবার, মশলাযুক্ত ঝাল খাবার, কোমল পানীয়, চিপস, কেক, সিগারেট, পান-সু’পারি যথাসম্ভব এড়িয়ে চলুন। খেতে ইচ্ছা করছে না এমন খাবার গাড়িতে ওঠার আগে খাবেন না।অন্য যাত্রীকে বমি করতে দেখলে অনেকসময় নিজেরও বমি আসতে পারে। এজন্য কেউ

বমি করলে সে’দিকে না তাকিয়ে থেকে নিজে খানিকটা পানি বা টকজাতীয় খাবার খেয়ে নিন।*ভ্রমণের সময় ব্যাগে আপেল, জলপাই, আদা কুচি, পুদিনাপাতা, বিটলবণ, কমলা, লেবু ইত্যাদি রাখতে পারেন। এগুলো মোশন সিকনেস কমাতে সাহায্য করে।* আ’পনার আসনের পাশের

জানালা খুলে রাখুন। সতেজ বাতাস চোখে-মুখে লাগলে বমিভাব কমে আসে।*বমি নিরোধক কিছু ঔষধ পাওয়া যায়। যেমন- অ্যাভোমিন, জয়’ট্রিপ ইত্যাদি। চিকিৎসকের পরামর্শ অনুসারে যাত্রা শুরুর আগে এসব ঔষধ খেয়ে নিলে মো’শন সিকনেস হওয়ার সম্ভাবনা কম থাকে।

নিউজটি শেয়ারের অনুরোধ রইলো

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২১ 'বিজয়ের বাংলা'
Developed by  Bijoyerbangla .Com
Translate to English »