1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. rujina666666@gmail.com : Rujina Akter : Rujina Akter
  5. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  6. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
ইএফটিতে এবার বেতন পাবেন মাদরাসার শিক্ষকরা ৩০ /৩২টা মেয়েকে থুয়ে সে আমাকে চায়,আর আমি একটা স্বামীকে ছাড়তে পারবো না! মাকে হ’ত‌্যার পর তার লা’শ বস্তায় ভরে পুকুরে ফেলে : ছেলেসহ আটক ২ সঠিক নিয়মে ছাড়াছাড়ি না হলে তামিমার বিয়ে বৈধ নয়: শায়খ আহমাদুল্লাহ এবার অনলাইনে ক্লাস করেই কুরআন হিফজ করলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮৫ জন শিক্ষার্থী Kc ছেলেদের সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় বাবাকে শিকলে বেঁধে রাখে নির্যাতন শহীদ মিনারে পবিত্র কুরআন খতম করলো এবার ইশা ছাত্র আন্দোলন এবার নওমুসলিম নারীকে দিয়ে দেহব্যবসা, কাউন্সিলর রিমান্ডে আগের স্বামীকে তালাক না দিয়েই ৮ বছরের ছোট মেয়েকে রেখে ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে

গত ২০ বছর ধরে পরে থাকা আল্লাহর নাম সংরক্ষণ করছেন হোসনে আরা

  • প্রকাশিত: ১০:১০ pm | বৃহস্পতিবার ২১ জানুয়ারী, ২০২১
  • ১৫৫ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
গত ২০ বছর ধরে পরে থাকা আল্লাহর নাম সংরক্ষণ করছেন হোসনে আরা।
আওয়ার ইসলাম: মাটিতে পরে থাকা পোষ্টার, লিফলেট এবং হ্যান্ডবিল থেকে বিসমিল্লাহির রাহমানির রাহিম, আল্লাহ্ আকবর এবং আল্লাহ সর্বশক্তিমান সহ পবিত্র

ধর্মগ্রন্থ আল কুরআনের বিভিন্ন আয়াত এবং আল্লাহর আল্লাহ্ তাআলার বিভিন্ন নাম ছিড়ে দীর্ঘ প্রায় ২০ বছর যা’বৎ সংরক্ষণ করে চলেছেন হোসনে আরা (৪০) নামের এক মহীয়সী নারী।জানা যায়, সিরাজগঞ্জের

শাহজাদপুর পৌর শহরের চুনিয়াখালী পাড়ার বাসিন্দা ফুটপাতের কাপড় ব্যাবসায়ী গোলাম মাওলার স্ত্রী হোসনে আরা (৪০) আনু’মানিক ২০০০ সাল থেকে আবর্জনা, ড্রেন, নর্দমা, খানাখন্দ এবং মাটিতে পড়ে থাকা পোষ্টার, লিফলেট এবং হ্যান্ডবিল থেকে

আল্লাহর নাম লেখা ও পবিত্র কুরআনের বিভিন্ন আয়াতের অংশ ছিড়ে নিজের কাছে সংরক্ষণ করে। পরে সেগুলো নদীতে ফেলে দেন তিনি।ইতিমধ্যেই ড্রেন এবং আবর্জনা থেকে এগুলো সংগ্রহ করার একটি ভিডিও সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে ভাইরাল হয়েছে। ইঞ্জিনিয়ার আবদুল্লাহ আল

মাহমুদ নামের এক ব্যক্তির ফেসবুকে পোস্ট ভিত্তিতে দেখা যায় একজন বোরকা পরিহিত নারী আবর্জনা এবং ড্রেন থেকে কিছু সংগ্রহ করছেন।পরে সেই নারীকে জিজ্ঞাসা করা হয় আপনি ড্রেন থেকে কি সংগ্রহ করছেন? উত্তরে নারীটি পোস্টার

থেকে ছিড়ে নেওয়া বিসমিল্লাহির রহমানির রাহিম অংশটি দেখিয়ে বলে এগুলো পবিত্র আয়াত এবং লেখা।মাটিতে পরে এসকল আয়াত এবং আল্লাহ্ তাআলার নামের অবমাননা হচ্ছে তাই এগুলো দেখে আমার কষ্ট হয়। তাই আমি প্রায় বিশ বছর যাবৎ

শহরের বিভিন্ন রাস্তায় ঘুরে ঘুরে এগুলো সংগ্রহ করি এবং পরে নদীতে ফেলে দেই। সরেজমিনে চুনিয়াখালী পাড়ার আবু সাঈদের বাড়িতে বাসা ভাড়া নি’য়ে থাকেন হোসনে আরার এবং কার স্বামী।হোসনে আরা জানান, ছোটবেলা থেকেই পারিবারিকভাবে আমি ধর্মীয় শিক্ষা গ্রহণ করেছি। জ্ঞান হ‌ওয়ার

পর থেকেই মাটিতে পরে থাকা পোস্টারে বা অন্যান্য কাগজে আল্লাহর নাম এবং পবিত্র কুরআনের আয়াত দেখে মনে কষ্ট অনুভব করতাম।একসময় নিজেই সিদ্ধান্ত নেই যে আমার চোখে যে’গুলো পরবে সেগুলো আমি সংরক্ষণ করবো। আর এখন প্রতিদিন আমি নিজেই এগুলো সংরক্ষণ করতে বিভিন্ন

রাস্তায় ঘুরি।জানা যায়, হোসনে আরা এবং তার স্বামী গোলাম মাওলা নিঃসন্তান। তাদের একটি সন্তান গর্ভে থাকা অবস্থাতেই নষ্ট হয়ে যায়। তাদের বাড়ি পাবনা জেলার চাটমোহর থানার সাইকোলা ইউনিয়নের লাঙ্গল মোড়া গ্রামে। হোসনে আরা বাবার

বাড়ি বরগুনায়, তার পিতা নুর মোহাম্মদ মৃধা ছিলেন কৃষক তার মায়ের নাম নুরজাহান খাতুন। হোসনে আরা জানানা, আমার জীবনের একটি ইচ্ছা সেটা হলো পবিত্র হজ্ব পালন এবং নবী হযরত মুহাম্মদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের র‌ওজা মোবারক জিয়ারত করা।

নিউজটি শেয়ারের অনুরোধ রইলো

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২১ 'বিজয়ের বাংলা'
Developed by  Bijoyerbangla .Com
Translate to English »