1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD Atikurrahaman : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  5. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
মুসলিম উম্মাহর সঙ্গে বিশ্বাসঘাতকতা করেছে আরব আমিরাত বললেন: এরদোগান তোমাদেরকে সেলেব্রিটি বানানোর জন্য আমি রাজপথে নামিনি শিপ্রা-সিফাতকে নুর মসজিদে আযান দেয়ার সময় বাবাকে কোপাল ছেলে করোনা আক্রান্ত পুরোহিত ছিলো মোদীর সঙ্গে একমঞ্চে হতে পারে মোদীরও করোনা ! মুসলমানদের ঐক্য নষ্টে করতে চেয়েছিল মোসাদ: ষড়যন্ত্র ফাঁস হয়ে গেছে জীবনে একবার হলেও যে নামাজ পরতে হয় সেই সালাতুত তাসবিহ পড়ার নিয়ম যে দোয়া পড়লে সব সময় আল্লাহর রহমত নাজিল হয় ইসরাইলীরা ভেঙে দিচ্ছে বাড়ি,কান্নারত ফিলিস্তিনি শিশু বলল ‘আমার আল্লাহ্ ওদের বাড়িও ভেঙে দিবেন জানা গেলো লেবাননে ভয়াবহ বিস্ফোরণের কারণ পরিচয় মিলেছে প্রদীপের সেই আইনি পরামর্শদাতার

ইতালির সবগুলো কারাগারে হবে মসজিদ এবং বন্দিরা পাবে ধর্মীয় শিক্ষা

  • প্রকাশিত: ০৮:১৫ pm | শনিবার ১ আগস্ট, ২০২০
  • ২৭৭ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
ইতালির সবগুলো কারাগারে হবে মসজিদ এবং বন্দিরা পাবে ধর্মীয় শিক্ষা।চলমান মহামারি করোনাভাইরাসের কারণে বদলে যাচ্ছে বি’শ্বের চিত্র। মানুষ ঝুঁকছেন ধর্মের প্রতি। ধর্মীয় নিয়ম-কানুন মেনে চলার প্রতি

 
বাড়ছে আগ্রহ। একই সঙ্গে বিভিন্ন দেশের সরকার নাগরিকদের এমন উদ্যোগে সাড়াও দিয়েছেন। এরই ধারাবাহিকতায় ইতালির সরকার সে দেশের সব কারাগারে মসজিদ নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছে।গ্লোবাল রিলিজিয়াস

 
ল্যান্ডস্কেপের পরসিংখ্যান মতে, ২০১২ সালে ইতালিতে মুসলমানের সংখ্যা ছিল ১৪ লাখ। যা মোট জনসংখ্যার ৩.৭ শতাংশ।তবে পিউ রিসার্চ সে’ন্টারের মতে ইতালিতে মুসলমানের হার ক্রমবর্ধমান। তাদের মতে ২০২০ সালে

 
মুসলমানের হার ৪.৯ শতাংশ এবং ২০৫০ সালে তা ৯.৫ শতাংশে উন্নীত হবে।
ইউরোপের চতুর্থ বৃহত্তম মুসলিম জনগোষ্ঠী ইতালিতে বসবাস করলেও ইসলামকে ধর্ম হিসেবে স্বীকৃতি দেয় না রাষ্ট্রটি। সেখানে

 
মাত্র আটটি স্বীকৃত মসজিদ রয়েছে। ২০০৮ সালের পর বহু মস’জিদের নির্মাণকাজ বন্ধ করে দেওয়া হয়। তবে ইতালিতে ৮০০ নামাজের স্থান রয়েছে। যাকে অনানুষ্ঠানিকভাবে মসজিদ বলা যায়।ইতালির

 
ইউনিয়ন অফ ইসলামিক কমিউনিটির হিসাব অনুযায়ী, দেশটিতে মুসলিমদের জন্য মাত্র ৭৬টি কবরস্থান রয়েছে।সম্প্রতি ইতালি সরকার ও ইউনিয়ন অব ইসলামিক কমিটিজ অ্যান্ড অরগা’নাইজেশন ইন ইতালির (ইউসিওআইআই) মধ্যে একটি সমঝোতা

 
চুক্তি স্বাক্ষর হয়েছে। যার অধীনে ইমামরা কারাগারের মুসলিম বন্দিদের ধর্মীয় শিক্ষা-দীক্ষা দেওয়া ও নামাজের ইমামতি করার সুযোগ পাবেন।কারা প্রশাসনের প্রধান

 
বিচারক বার্নার্ডো পেট্রেলিয়া ও ইউসিওআইআইয়ের সভাপতি ইয়াসিন লাফরাম চুক্তিপত্রে স্বাক্ষর করেন।মে মাসের শেষ সপ্তাহে ক’রোনাভাইরাসের কারণে বন্ধ থাকা দেশটির মসজিদ ও প্রার্থনাকক্ষগুলো

 
খুলে দেওয়ার ব্যাপার ইতালির প্রধানমন্ত্রী জিউসেপ কোঁতে ও ইউসিওআইআইয়ের প্রতিনিধি দলের মধ্যে একটি চুক্তি স্বাক্ষরিত হয়। সেই চুক্তির আলোকে নতুন সমঝোতা চুক্তি স্বাক্ষরিত হলো।ইতালির বিচার মন্ত্রণালয়ের তথ্য মতে, ইতালির ৬০ হাজার বন্দির মধ্যে ১০ হা’জারই বিদেশি। তাদের

 
বেশিরভাগ মরোক্ক, তিউনিশিয়া ও রোমানিয়ার নাগরিক। ইতালির বন্দিদের মধ্যে সাত হাজার ২০০ জন মুসলিম। তাদের জন্য ৯৭ জন ধর্মীয় শিক্ষক রয়েছেন। বন্দির ৪৪ জনের দাবি তারা জেলেই

 
ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করেছেন।বর্তমানে ইতালির মাত্র কয়েকটি জেলে মুসলিম বন্দিদের প্রার্থনার জায়গা রয়ে’ছে, যা প্রয়োজনের তুলনায় খুবই কম।ইতালির বিচার মন্ত্রণালয়ের এক বিবৃতিতে বলা হয়, ইতালির কারাগারে বিভিন্ন ধর্মাবলম্বী মানুষের

 
সংখ্যা বৃদ্ধি পাওয়ায় সবার জন্য সঠিকভাবে ধর্মপালনের সুযোগ করে দেওয়ার প্রয়ো’জনীয়তা দেখা দিয়েছে।চুক্তি অনুযায়ী ইউসিওআইআই ইতালিতে ইমামের দায়িত্ব পালনকারীদের একটি তালিকা দেবে, যারা সারা দেশের কারাগারের মুসলিম বন্দিদের