1. atikurrahman0.ar@gmail.com : MD : MD Atikurrahaman
  2. Mijankhan298@gmail.com : Mijankhan :
  3. mbbrimon@gmail.com : MBB Rimon : MBB Rimon
  4. rujina666666@gmail.com : Rujina Akter : Rujina Akter
  5. shamimulislamtanvirrana@gmail.com : MD Tanvir Islam : MD Tanvir Islam
  6. shafiulislamtanzil@gmail.com : Safiul Islam Tanzil : Safiul Islam Tanzil
 
সর্বশেষঃ
ইএফটিতে এবার বেতন পাবেন মাদরাসার শিক্ষকরা ৩০ /৩২টা মেয়েকে থুয়ে সে আমাকে চায়,আর আমি একটা স্বামীকে ছাড়তে পারবো না! মাকে হ’ত‌্যার পর তার লা’শ বস্তায় ভরে পুকুরে ফেলে : ছেলেসহ আটক ২ সঠিক নিয়মে ছাড়াছাড়ি না হলে তামিমার বিয়ে বৈধ নয়: শায়খ আহমাদুল্লাহ এবার অনলাইনে ক্লাস করেই কুরআন হিফজ করলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ১৮৫ জন শিক্ষার্থী Kc ছেলেদের সম্পত্তি লিখে না দেওয়ায় বাবাকে শিকলে বেঁধে রাখে নির্যাতন শহীদ মিনারে পবিত্র কুরআন খতম করলো এবার ইশা ছাত্র আন্দোলন এবার নওমুসলিম নারীকে দিয়ে দেহব্যবসা, কাউন্সিলর রিমান্ডে আগের স্বামীকে তালাক না দিয়েই ৮ বছরের ছোট মেয়েকে রেখে ক্রিকেটার নাসিরকে বিয়ে

আল আকসার পশুপাখিরাও তার মৃ’ত্যুতে কষ্ট পেয়েছে

  • প্রকাশিত: ০৯:২৮ am | বুধবার ২৭ জানুয়ারী, ২০২১
  • ২৭৫ বার পঠিত

বিজয়ের বাংলা:
আল আকসার পশুপাখিরাও তার মৃ’ত্যুতে কষ্ট পেয়েছে।জেরুসালেমের ফিলিস্তিনি বাসিন্দারা এক বৃদ্ধের মৃ’ত্যুতে শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছেন। মসজিদ আল-আকসার ‘আবু হুরাইরা’ (বিড়াল দলের বাবা) হিসেবে পরিচিত ৭১ বছর বয়সী এই বৃদ্ধ গত মঙ্গলবার

করোনাভাইরাস সংক্রমণে ইন্তেকাল করেন।গাসসান ইউনুস আবু আইমান প্রায় তিন দশক আল-আকসা মসজিদের আঙিনায় জমা হওয়া বি’ড়াল এবং পাখিদের খাইয়ে আসছিলেন। এর জন্য প্রতিদিন হাইফা

জেলার আরা গ্রামের নিজের বাড়ি থেকে এক শ’ কিলোমিটারের বেশি পথ পাড়ি দিয়ে জেরুসালেমের আল-আকসায় আসতেন তিনি।কখনো তিনি নিজে যেতে না পারলে, নিজের বন্ধু এবং স্বজনদের পাঠাতেন আল-আকসার আঙিনায় বিড়াল এবং

পাখিদের খাওয়াতে। আল-আকসা মসজিদের বিড়ালদের খাবার দেয়া এবং যত্ন নেয়ার কারণে তিনি জেরুসালেমের বাসিন্দাদের কাছে আল-আকসার ‘আবু হুরাইরা’ হিসেবে পরিচিতি পান।গাসসান

২০১৬ সালে আলজাজিরার কাছে দেয়া এক সাক্ষাতকারে বলেন, ‘আমার চলার সময় সবদিক থেকেই সব বি’ড়ালকে আমার কাছে আসতে দেখি।তারা আমার সাথেই চলতে থাকে যতক্ষণ না আমি কুব্বাতুস সাখারার

(ডোম অব রক) আঙিনায় পৌঁছাই।’ অপর এক সাক্ষাতকারে তিনি বলেন, ‘আল্লাহ আমাকে এই দায়িত্বের সম্মান দিয়েছেন…বিড়ালগুলো আমাকে ভালোই চেনে এবং আমি তাদের সাথে খুবই ঘনিষ্ঠ।’ জেরুসালেমের বাসিন্দা এবং অন্য ফিলিস্তিনিরা

গাসসানের মৃত্যুতে শোকাচ্ছন্ন হয়ে পড়েছেন। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে অনেকেই শোক প্রকাশ করেন এবং গাসসানের সাথে তাদের স্মৃতি তুলে ধরেন।মারওয়া হাসিন নামে একজন তার টুইট বার্তায় লিখেন, ‘কিয়ামতের দিন আল-আকসার

পাখি এবং বিড়াল এমনকি মানুষও সাক্ষ্য দেবে আপনি কী করেছিলেন।’আলিয়া তিমা নামে অপর একজন টুইটারে গাসসানের আল-আকসা মসজিদ প্রাঙ্গনে শিশুদের

গণনা শেখানোর এক ভিডিও প্রকাশ করেন। রিদওয়ান ওমর নামে জেরুসালেমের বাসিন্দা অপর এক ফিলিস্তিনি গাসসানের বিভিন্ন ছবি সংযুক্ত করে একটি শোকবার্তা পোস্ট করেন।এতে তিনি লিখেন, ‘আজকে সবাই

আপনার জন্য কাঁদছে। শিশু, পাখি, পাথর, (আল-আকসার) আঙিনা, সবাই। যারাই আপনাকে চিনতো, আপনাকে ভালোবাসতো।’ সূত্র : মিডল ইস্ট মনিটর, মিডল ইস্ট আই

নিউজটি শেয়ারের অনুরোধ রইলো

এই বিভাগের আরো সংবাদ
© সর্বস্বত্ব স্বত্বাধিকার সংরক্ষিত ২০১৯-২০২১ 'বিজয়ের বাংলা'
Developed by  Bijoyerbangla .Com
Translate to English »